Logo
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

লামার ফাইতংয়ে মাদ্রাসার পরিচালকের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের হুমকি দিয়ে চাঁদাদাবি!

নিজস্ব প্রতিনিধি।। / ৬৬ বার
আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

বান্দনবান পার্বত্য জেলার লামা উপজেলার অন্তর্গত ৩০৬ নং ফাইতং ইউনিয়নের ইসলামাবাদ (বুড়ির চিকনঘোনা) গ্রামে অবস্থিত দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্টান আশরাফিয়া তা’লীমুল কোরআন মাদ্রাসা ও এতিমখানার প্রতিষ্টাতা পরিচালকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপপ্রচারের হুমকি দিয়ে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করছে স্থানীয় কতিপয় যুবক! গত দুই সপ্তাহ ধরে মাদ্রাসা পরিচালকের মুঠোফোনে ফোন করে মোটা অংকের চাঁদা দাবি করা হচ্ছে। স্থানীয় চাঁদাবাজ চক্রের অব্যাহত হুমকিতে চরমভাবে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন ওই মাদ্রাসার প্রতিষ্টাতা পরিচালক হাফেজ মো: আশরাফ আলী। তিনি মসজিদের ইমামতির চাকুরীর সুবাধে চট্টগ্রাম শহরে অস্থায়ীভাবে বসবাস করলেও স্থানীয় চাঁদাবাজ চক্র তার মাদ্রাসার বিরুদ্ধে নানান ধরনের অপপ্রচার ও ষড়যন্ত্র শুরু করেছে বলে প্রাপ্ত অভিযোগের ভিত্তিতে জানা গেছে।

হাফেজ আশরাফ আলী অভিযোগ করে জানান, তিনি মাদ্রাসাটি অতিকষ্ট করে প্রতিষ্টা করে এলাকায় দ্বীনের খেদমত করে যাচ্ছেন। মাদ্রাসার যাবতীয় ব্যয়বার তিনি অতিকষ্টে বিভিন্ন সহায়তা নিয়ে যোগান দিচ্ছেন। গত মাসের ৮ জানুয়ারী মাদ্রাসার ৭ম তম বার্ষিক সভা অনুষ্টিত হয়েছে। প্রতি বছরের ধারাবাহিকতায় এ বছরও যথাসময়ে দাওয়াত পত্রে উল্লেখিত তারিখ ও দিন অনুযায়ী মাদ্রাসার বার্ষিক সভা অনুষ্টিত হয়েছে। কিন্তু স্থানীয় কতিপয় চাঁদাবাজ প্রকৃতির যুবক তার মাদ্রাসার সভার একটি পোষ্টার কম্পিউটারে এডিটিং করে এখনো মাদ্রাসা সভার আয়োজন করেনি বলে মাদ্রাসা ও তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন জনের কাছে এলাকায় অপপপ্রচারসহ বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে এবং আরো ব্যাপকভাবে অপপ্রচারের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। এসব অপপ্রচার শুরু করার পর তার কাছ থেকে স্থানীয় কতিপয় যুবক মুঠোফোনের মাধ্যমে মোটা অংকের চাঁদা দাবি করছেন। চাঁদা না দিলে মাদ্রাসা ও তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন মাধ্যমে অপপ্রচার চালানোর হুমকি দেওয়া হয়েছে। তিনি এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনের জরুরী হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, হাফেজ আশরাফ আলী অতিকষ্টে মাদ্রাসাটি পরিচালনা করছেন। মাদ্রাসাটি প্রতিষ্টার পর থেকে এলাকায় দ্বীনি শিক্ষা প্রসারে ব্যাপক ভূমিকা রাখছে। এ ধরনের একটি দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্টান ও প্রতিষ্টানের পরিচালকের কাছ থেকে চাঁদা দাবির ঘটনা দু:খজনক। মাদ্রাসার পরিচালকের কাছ থেকে চাঁদাদাবি ও মাদ্র্রাসার বিরুদ্ধে অপপ্রচারকারী দুষ্টচক্রের বিরুদ্ধে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয়রাও লামা প্রশাসনের কাছে সহায়তা কামনা করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর