Logo
শিরোনাম :
উখিয়ায় ২জন চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ১৪জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার ক্লাইমেট চেন্জে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ বাংলাদেশ : স্কাস চেয়ারম্যান জেসমিন প্রেমা উখিয়ায় ৬ খুনের ঘটনায় গ্রেফতার ৪ উখিয়ায় সমাজ কল্যাণ ও উন্নয়ন সংস্থা (স্কাস)’র কমিউনিটি রিসোর্স সেন্টার উদ্বোধন জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীর সর্মথনে এক নির্বাচনী মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় ১০ জন আটক রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৬ খুনের ঘটনায় থানায় মামলা বিএফইউজের নেতৃত্বে ফারুক-দীপ, সর্বোচ্চ ভোটে সদস্য হলেন দেশ রূপান্তরের সুইটি রোহিঙ্গা নেতা মহিবুল্লাহ হত্যায় সরাসরি অংশ নিয়েছে আজিজুল চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জামী চৌধুরীর ব্যাপক গণসংযোগ
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

নামে মিল থাকায় ষড়যন্ত্রমূলক মাদক মামলার আসামী হলেন উখিয়া যুবলীগ নেতা বশির

শহিদুল ইসলাম।। / ৪৪৫ বার
আপডেট সময় : বুধবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

 

 

নামে মিল থাকার কারণে ষড়যন্ত্রমূলক মাদক মামলার আসামী হলেন উখিয়া উপজেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক বশির আহমদ আহমদ আজাদ। সে রাজাপালং ইউনিয়নের দক্ষিণ ফলিয়া পাড়া গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে এবং কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য।

তার পরিবারের দাবী কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি বশির আহমদ আজাদকে রাজনৈতিক ভাবে বিতর্কিত করার জন্য এই মামলায় তাকে আসামী করা হয়।

১০ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৩টায় বশিরের ছোট ভাই ও উখিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ইব্রাহিম আজাদ মাদক মামলা থেকে তার ভাইয়ের নাম প্রত্যাহার দাবী করে সাংবাদিকদের বলেন, গত শুক্রবার আমার ভাই বশির আহমদসহ একসাথে জুমার নামাজ আদায় করি। নামাজের পরে জানতে পারি মধুছড়া এলাকায় একটি সিএনজি থেকে এবিপিএন সদস্যরা ইয়াবাসহ সিএনজি চালককে আটক করে। সিএনজি চালক তার মালিক বশির ইয়াবার সাথে জড়িত আছে বলে সাক্ষ্য দেন।

অথচ, আমার ভাই বশির আহমদ আজাদের মালিকানাধীন কোন সিএনজি নেই। আটক সিএনজি চালকের কাছ থেকে ঘটনার প্রকৃত বিষয়ে জানতে নিরপেক্ষ তদন্তের দাবী জানান।

মূলত: নামে মিল থাকার কারণে এক বশিরের জায়গায় অন্য বশিরকে আসামী করা হয়েছে। তাই ঘটনার অধিকতর তদন্ত পূর্বক ছাত্রলীগের সাবেক এই নেতার নাম বাদ দিয়ে প্রকৃত অপরাধীদের আইনের আওতায় আনার দাবী জানিয়েছেন।

সূত্রে জানা গেছে, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বাঁশের ট্রাক প্রবেশ নিয়ে এবিপিএন মধুছড়া ক্যাম্পের ইনচার্জ মোজাহেরুল ইসলাম প্রবেশ নিয়ে যুবলীগ নেতা বশিরের মতানৈক্যে ছিল। এ কারণে তাকে ইয়াবা মামলায় আসামী করা হয়। এ ব্যাপারে মোজাহেরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ না করায় তাঁর বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

রাজাপালং ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রাসেল উদ্দিন সুজন বলেন, দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক সহযোদ্ধা বশির। তাকে প্রভাবশালীরা ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা ইয়াবা মামলা দিয়ে হয়রানির চেষ্টা করছে। সুষ্টু তদন্ত পূর্বক বশিরের নাম বাদ দিয়ে প্রকৃত সিএনজি মালিক বশিরকে শাস্তির আওতায় আনা হউক।

 

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উখিয়া থানার ওসি আহাম্মদ সঞ্জুর মোর্শেদ বলেন, ঘটনার দিন আমি ছুটিতে ছিলাম। বিস্তারিত খোঁজ নিতে হবে।

উল্লেখ্য, গত ৬ ফেব্রুয়ারি মধুছড়া এলাকায় একটি সিএনজি (থ-১১-৭৮৭৫) থেকে ২০ হাজার ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় সাবেক ছাত্রলীগ নেতাসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। যার মামলা নম্বর- ৪।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর