Logo
শিরোনাম :
উখিয়ায় ২জন চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ১৪জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার ক্লাইমেট চেন্জে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ বাংলাদেশ : স্কাস চেয়ারম্যান জেসমিন প্রেমা উখিয়ায় ৬ খুনের ঘটনায় গ্রেফতার ৪ উখিয়ায় সমাজ কল্যাণ ও উন্নয়ন সংস্থা (স্কাস)’র কমিউনিটি রিসোর্স সেন্টার উদ্বোধন জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীর সর্মথনে এক নির্বাচনী মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় ১০ জন আটক রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৬ খুনের ঘটনায় থানায় মামলা বিএফইউজের নেতৃত্বে ফারুক-দীপ, সর্বোচ্চ ভোটে সদস্য হলেন দেশ রূপান্তরের সুইটি রোহিঙ্গা নেতা মহিবুল্লাহ হত্যায় সরাসরি অংশ নিয়েছে আজিজুল চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জামী চৌধুরীর ব্যাপক গণসংযোগ
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

পেকুয়ায় মিথ্যা মামলায় কারারক্ষী শাহাদাত কারাগারে!

বার্তা পরিবেশক।। / ৭২৫ বার
আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারী, ২০২১

কক্সবাজার জেলার পেকুয়া উপজেলায় মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার হয়ে কারারক্ষী শাহাদাত ইসলাম কারাগারে রয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। স্থানীয়রা কারারক্ষী শাহাদাত ইসলামের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা ও ভিত্তিহীন মামলা অবিলম্বে প্রত্যাহারপূর্বক তার মুক্তি দাবি করেছেন এবং মিথ্যা মামলার বাদীকে গ্রেফতার দাবিও করেছেন।

সুত্র জানায়, পেকুয়া থানা পুলিশ গত ১০ জানুয়ারী সন্ধ্যায় উপজেলার শিলখালী ইউনিয়নের স্কুল ষ্টেশন থেকে কারারক্ষী শাহাদাত ইসলাম (২৭) একটি মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করেন। কারারক্ষী শাহাদাত ইসলাম উপজেলার সদর ইউনিয়নের আবদুল হামিদ সিকদার পাড়া গ্রামের মো: হাসানের পুত্র। তিনি বান্দরবান জেলা কারাগারে কারারক্ষী পদে সততার ও দক্ষতার সাথে কর্মরত ছিল।

কারারক্ষী শাহাদাত ইসলামের পরিবার দাবি করেছেন, শাহাদাত ইসলামের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে কক্সবাজারে মিথ্যা ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করেছিল একই উপজেলার টইটং ইউনিয়নের আবদুল্লাহ পাড়া গ্রামের জামাল হোসেনের কন্যা আকলিমা বেগম। যার সি,পি, মামলা নং ২৭০/১৯। আর ওই মামলার বিষয়ে কারারক্ষী শাহাদাত ও তার পরিবার কিছুই জানেনা। মামলার বাদী কঠোর গোপনীয়তার মাধ্যমে মামলা দায়ের করে পরবর্তী গত ১০ জানুয়ারী শাহাদাতকে গ্রেফতারও করিয়েছেন।

কারারক্ষী শাহাদাত ইসলামের ছোট ভাই সাইফুল ইসলাম অভিযোগ করেছেন, ২০১৭ সালে শাহাদাত ইসলামকে অপহরণ করে চকরিয়া উপজেলার কোনাখালী ইউনিয়নের জঙ্গলকাটা গ্রামের একটি বাড়িতে নিয়ে আটকে রেখে অমানুষিক নির্যাতন চালিয়ে ওই ইউনিয়নের নিকাহ ও তালাক রেজিষ্টার কাজী আবু তৈয়বকে ডেকে এনে জোর করেই ৭ লাখ টাকা কাবিন নামায় আকলিমার সাথে বিবাহ পড়ানো হয়। এ বিয়েতে শাহাদাত ইসলাম ও তার পরিবারের কোন ধরনের সম্মতি ছিলনা। আকলিমা বেগম কৌশলে সন্ত্রাসীদের ভাড়া করে বিগত ২০১৭ সালে পেকুয়া চৌমুহুনী থেকে শাহাদাত ইসলামকে চকরিয়ায় বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে কোনাখালী ইউনিয়নের জঙ্গল কাটা গ্রামের একটি বাড়িতে আটকে রেখে বিয়ে করেন। এরপর থেকে আকলিমা শাহাদাতকে স্বামী দাবী করে বিভিন্ন আদালতে একের পর এক মিথ্যা ও হয়রানীমূলক মামলা দায়ের করে আসছে। তার ভাইকে চাকুরীচ্যুত করার জন্য গভীর চক্রান্ত শুরু করেছে আকলিমার পরিবার ও কিছু ষড়যন্ত্রকারী মহলবিশেষ।
এরই অংশ হিসেবে তার ভাইয়ের বিরুদ্ধে আকলিমা তাকে নির্যাতনের কথিত অভিযোগ এনে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল কক্সবাজারের-৩ ও চীফ মেট্টোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেটের আদালত,চট্টগ্রামে পৃথক দুইটি মামলা দায়ের করেন।

কারারক্ষী শাহাদাত ইসলামের পিতা মো: হাসান জানান, তার ছেলে সরকারী চাকুরী করে। এই লোভে আকলিমা নামের মেয়েটি তার ছেলের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিতে একের পর এক মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় আকলিমা যে সব অভিযোগ তার ছেলের বিরুদ্ধে করেছেন তার কোন ভিত্তি নেই। তার ছেলের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়েরকারী গংদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর