Logo
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

শেষ ওভারে আরিফুলের চার ছক্কায় ম্যাচ খুলনার

উখিয়া কন্ঠ  ডেস্ক / ১৪২ বার
আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২০

 

দু’দলের ২২ জন খেলছেন। কিন্তু আলোর ছটা সবচেয়ে বেশি ছিল সাকিব আল হাসানের ওপর। সাকিব ম্যাচে ব্যাটে-বলে তেমন বড় কিছু করতে পারেননি। ৩ ওভারের বোলিংয়ে ১৮ রানে ১ উইকেট। ব্যাটিংয়ে ১৩ বলে ১৫ রান করেন। তবে ম্যাচ শেষে সাকিবের মুখে ঠিকই হাসি ঝরল। তার দল জেমকন খুলনা ম্যাচ জিতল ৪ উইকেটে। শেষ ওভারে চার ছক্কার ঝড় তুলে খুলনাকে ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছাড়লেন আরিফুল।

শেষ ওভারে ম্যাচ জিততে খুলনার সামনে টার্গেট দাঁড়ায় ২২ রানের। দলের পেসারদের কোটা শেষ হয়ে যাওয়ায় অধিনায়ক তামিম ইকবালের সামনে স্পিনার না ডেকে উপায় ছিল না। অভিজ্ঞ মেহেদি হাসান মিরাজের হাতে বল তুলে দিলেন তিনি। মেহেদিকে চার ছক্কায় উড়িয়ে দিয়ে বীরত্বের কায়দায় ম্যাচ জিতলেন আরিফুল। শেষ ওভারের প্রথম দুই বলে ছক্কা হাঁকান আরিফুল। তৃতীয় বলে সিঙ্গেল নিতে পারতেন। কিন্তু স্ট্রাইক নিজের হাতে রাখার সাহসী সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি। সিঙ্গেল রানের জন্য দৌড়ালেন না। ব্যাট উঁচিয়ে অপর প্রান্তের ব্যাটসম্যান শহিদুলকে আশ্বাস দিলেন- আমি ম্যাচ জিতিয়ে দেবো! সেটা ব্যাট হাতে করেও দেখালেন আরিফুল। চতুর্থ বলে ফের ছক্কা। পঞ্চম বলে চার নম্বর ছক্কা! ম্যাচ জয়!

দুঃস্বপ্নের শেষ ওভার অনেক দিন পোড়াবে স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজকে।

কি আশ্চর্য, দিনের ম্যাচে শেষ ওভারে রাজশাহীর স্পিনার মেহেদি হেসেছিলেন জয়ের হাসি। সেই ম্যাচে ঢাকাকে শেষ ওভারে ৯ রান তুলতে দেননি মেহেদি। আর রাতের ম্যাচে সিনিয়র মেহেদি শেষ ওভারে ২২ রানও ডিফেন্ড করতে পারলেন না!

ক্রিকেট আসলে এমনই! কখন কিভাবে কাকে জেতাবে- শেষ বল না হওয়া পর্যন্ত বোঝা দায়। ম্যাচ শেষে বরিশালের অধিনায়ক তামিম ইকবালও মানলেন- ‘এক ওভারের খেলাই ম্যাচের হিসেব বদলে দিয়েছে। যেভাবে সামনে বাড়ছিল খুলনা, তাতে ১৯ নম্বর ওভারে তাসকিনকে না ডেকে উপায় ছিল না। আরিফুল শেষ ওভারে ম্যাচ জিতে নিল।’

টসে হেরে ফরচুন বরিশাল তুলেছিল ১৫২ রান। ওপেনার পারভেজ হোসেন ইমন ৪২ বলে ৫১ রান করেন। মাঝে তৈাহিদ হৃদয় ২৫ বলে করেন ২৭ রান। আর শেষের দিকে মাহিদুল ইসলাম অঙ্কন ৩ ছক্কায় ১০ বলে তুলেন ২১ রান। খুলনা পেসার শহিদুল ইসলাম ৪ ওভারে ১৭ রানে ৪ উইকেট পান।

রান তাড়ায় খুলনার পাওয়ার প্লে’তে ৩৬ রানে হারায় ৪ উইকেট। মাহমুদউল্লাহ, সাকিব দুজনেই প্রথম ম্যাচে ব্যাট হাতে ব্যর্থ। জহুরুল, আরিফুল ও শামীম হোসেনের ব্যাটিং শক্তিতে খুলনা ম্যাচ জয়ের স্বপ্ন জাগিয়ে তোলে। আর শেষ ওভারে আরিফুল একা হাতে চার ছক্কায় দলকে জয় উপহার দিলেন।

টুর্নামেন্টের সামনের সময়ের জন্য একটা কৌতূহল রেখে দিলেন তামিম ইকবাল এই ম্যাচে। ম্যাচের শেষ ওভার করার জন্য কি আর কখনো বরিশাল অধিনায়ক স্পিনারের হাতে বল তুলে দেবেন?

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ফরচুন বরিশাল: ১৫২/৯।

জেমকন খুলনা: ১৫৫/৬

ফল: খুলনা ৪ উইকেটে জয়ী।

ম্যাচ সেরা: আরিফুল হক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর