Logo
শিরোনাম :
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্কাসের কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন উপআনুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো ডিজি ডাকাতির প্রস্তুতিকালে দেশীয় অস্ত্রসহ ১৪ রোহিঙ্গা গ্রেপ্তার উখিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় গ্রাম্য চিকিৎসক আহত নেতাকর্মীদের ভালোবাসায় সিক্ত এম এ মন্জুর ভালোবাসায় সিক্ত হন অধ্যক্ষ মো. শাহ আলম নৌকার মনোনয়ন নিয়ে এসে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত চেয়ারম্যান টিপু সুলতান রাজাপালংয়ে নৌকার প্রার্থী জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীর সমর্থনে শোকরানা ও পথ সভা অনুষ্ঠিত খরুলিয়ার গণি বৈরাগী সোয়া ৯ হাজার ইয়াবাসহ গ্রেফতার উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আবারো প্রার্থী হয়েছি : ইঞ্জিনিয়ার হেলাল উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

উখিয়ায় যত্রতত্র বৃদ্ধি পাচ্ছে ভাড়াটিয়াদের সংখ্যা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ / ১৪৪ বার
আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২০

উখিয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত ভাড়াটিয়াদের সংখ্যা। বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নির্যাতনের মুখে পালিয়ে বাংলাদেশে সর্বশেষ ২০১৭সালে বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় গ্রহণ করে রোহিঙ্গারা। নির্যাতনের মুখে পালিয়ে আসা এসব রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সেবায় নিয়োজিত রয়েছে দেশি বিদেশি বিভিন্ন এনজিও সংস্থা। এসব সংস্থায় কর্মরত রয়েছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের হাজারো নারী পুরুষ। যারা কক্সবাজার জেলার বিভিন্ন প্রান্তে অবাধ বিচরণ করে যাচ্ছে।
বছর দুয়েক আগে অপরাধ নিয়ন্ত্রণে ভাড়াটিয়াদের তালিকা করা হলেও বর্তমানে তা থমকে দাঁড়িয়েছে। যার ফলে প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে যত্রতত্র বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাসকারীদের সংখ্যা। সম্প্রতি অরাজকতার মধ্য দিয়ে চলছে দেশের পরিস্থিতি। এমতাবস্থায় যত্রতত্র দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত ভাড়াটিয়াদের চলাফেরা নিয়ে শঙ্কিত স্থানীয়রাও।
সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন জেলার লোকজন মরণনেশা ইয়াবাসহ আটক হয়েছে। অনেকে কৌশলে চালিয়ে যাচ্ছে অপরাধ কার্যক্রম। সরেজমিনে দেখা যায়, উখিয়া উপজেলার কুতুপালং, বালুখালী, উখিয়া সদর,কোটবাজার, মরিচ্যাসহ প্রায় সব এলাকায় উন্মুক্তভাবে বাসা ভাড়া নিয়ে অবস্থান করে বিভিন্ন জেলা থেকে আগত লোকজনরা।
অসংখ্য এনজিও সংস্থা দীর্ঘদিন অফিস ভাড়া নিয়ে অবস্থান করছে। পাশাপাশি বহিরাগত বিভিন্ন শ্রেণীপেশার লোকজনের আসা যাওয়া আর প্রশাসনের কোনো মনিটরিং না থাকায় যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কা স্থানীয়দের। অসংখ্য বহিরাগত লোকজন স্থায়ী দালান নির্মাণ করে চালিয়ে যাচ্ছে মাদকদ্রব্য পাচার কার্যক্রম। যাদের বিপুল অর্থের কাছে সাধারণ মানুষ মুখ খুলতে দ্বিধাবোধ করে।
অন্যদিকে বহিরাগত অসংখ্য নারী-পুরুষ স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে অনৈতিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হচ্ছে। ১৪ই নভেম্বর সুশীলনের এক কর্মকর্তাকে অবৈধ মেলামেশার সময় হাতেনাতে আটক করে জনতা। এরকম অসংখ্য ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটে যাচ্ছে। যাতে প্রশাসনের মনিটরিং বৃদ্ধি করা হলে কিছুটা সুফল আসবে বলে আশাবাদী স্থানীয়রা। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উখিয়া থানার ডিউটি অফিসার জানান,বহিরাগতদের ব্যাপারে মনিটরিং অব্যাহত রয়েছে। তাদের তালিকা কার্যক্রমও অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি।উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ(ভারপ্রাপ্ত) আহাম্মদ সনজুর মোর্শেদ জানান, ভাড়াটিয়াদের চলাফেরার বিষয়টি মনিটরিংয়ে রয়েছে। যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা রোধে উখিয়া থানা পুলিশ সর্বদা প্রস্তুত রয়েছে বলে জানান তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর