Logo
শিরোনাম :
উখিয়ায় ২জন চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ ১৪জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার ক্লাইমেট চেন্জে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ বাংলাদেশ : স্কাস চেয়ারম্যান জেসমিন প্রেমা উখিয়ায় ৬ খুনের ঘটনায় গ্রেফতার ৪ উখিয়ায় সমাজ কল্যাণ ও উন্নয়ন সংস্থা (স্কাস)’র কমিউনিটি রিসোর্স সেন্টার উদ্বোধন জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীর সর্মথনে এক নির্বাচনী মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ৬ রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় ১০ জন আটক রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৬ খুনের ঘটনায় থানায় মামলা বিএফইউজের নেতৃত্বে ফারুক-দীপ, সর্বোচ্চ ভোটে সদস্য হলেন দেশ রূপান্তরের সুইটি রোহিঙ্গা নেতা মহিবুল্লাহ হত্যায় সরাসরি অংশ নিয়েছে আজিজুল চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জামী চৌধুরীর ব্যাপক গণসংযোগ
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

সুশীলনের লম্পট অভিযুক্ত কর্মকর্তা বহিস্কার

নিজস্ব প্রতিবেদক / ২৫৪ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২০

নারী এনজিওকর্মীর বাসা থেকে আপত্তিকর অবস্থায় সুশীলনের এক কর্মকর্তা জনতার হাতে-নাতে ধরা পড়ার সংবাদ একাধিক  অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদ  প্রকাশিত হলে টনক নড়ে সংশ্লিষ্ঠ এনজিও বড় কর্তাদের। যার প্রেক্ষিতে তাকে চাকরি থেকে বহিস্কার করেছে বলে অভিযুক্ত ব্যক্তি জানিয়েছেন।

অপরদিকে আর কখনো এ ধরনের অনৈতিক কাজে জড়িত হবে না মর্মে মুচলেকা দিয়ে চেয়ারম্যানের কার্যালয় থেকে ছাড় পেয়েছে অভিযুক্ত এই কর্মকর্তা।

এদিকে গত শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উখিয়া উপজেলার পালংখালীস্থ এক নারী এনজিওকর্মীর বাসা থেকে আপত্তিকর অবস্থায় জনতা হাতে-নাতে ধরা পড়ে সুশীলন নামক এনজিও’র এক কর্মকর্তা। তার নাম অনিরুদ্দা সরকার।

স্থানীয় লোকজন তাকে আপত্তিকর অবস্থায় ধরে চেয়ারম্যান’এর কার্যালয়ে নিয়ে আসে, চেয়ারম্যান তাৎক্ষণিক কোন সিদ্ধান্ত দিতে পারেনি। পরের দিন অর্থাৎ রবিবার রাতে তার নিকট থেকে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেন।

এ প্রসঙ্গে অভিযুক্ত অনিরুদ্দা সরকার বলেন, আমাকে রাতে এক নারী এনজিওকর্মীর বাসায় পেয়ে স্থানীয় লোক ধরে চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে
নিয়ে আসেন। পরে আর কখনো এ ধরনের কাজ করবোনা বলে মুচলেকা দিয়ে সেখান থেকে ছাড়া পায়। ততক্ষণে খবরটি  বিভিন্ন গণমাধ্যমে চাউর হলে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ চাকরি থেকে আমাকে সাসপেন্ড করেন।

পালংখালী ইউপি চেয়ারম্যান এম গফুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ঘটনার বিষয়ে কেউ অভিযোগ না করায় মুচলেকা নিয়ে ওই এনজিও কর্মকর্তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত বিভিন্ন স্থান থেকে আগত এনজিওকর্মীরা দীর্ঘদিন ধরে স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়ে অবৈধ মেলামেশা করে আসলেও প্রশাসন তেমন কোন উদ্যোগ গ্রহণ করতে দেখা যায়নি।বিভিন্ন গণমাধ্যমে লেখালেখির পর উপজেলা প্রশাসন গত বছর সিকদারবিল গরুবাজারস্থ কয়েকটি ভবনে অভিযান পরিচালনা করলেও পরবর্তীতে তা থমকে যায়। যার ফলে এসব অবৈধ মেলামেশা আরো বৃদ্ধি পায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর