Logo
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

চকরিয়ায় WFP ত্রাণ বিতরণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ : তদন্তের দাবী মুক্তিযোদ্ধা হাজী বশিরের

পেকুয়া প্রতিনিধি / ১৭৬ বার
আপডেট সময় : বুধবার, ৮ জুলাই, ২০২০

 

কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলায় ১৬হাজার ৫শত জন কর্মহীন লোকজনের মাঝে WFP ‘র ত্রাণ বরাদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে।স্বয়ং ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন চকরিয়া উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হাজী বশির।করোনা ভাইরাসের কারণে সারা বাংলাদেশে লকডাউন চলায় কর্মহীন হয়ে পড়ে হাজার হাজার লোক। তাই এসব কর্মহীন হয়ে যাওয়া লোকজনের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জনপ্রতিনিধি,রাজনীতিবীদ, এনজিও সংস্হা সহ বিভিন্ন সাহায্যকারী সংগঠন এগিয়ে আসেন।

এরই ধারাবাহিকতায় বিশ্ব খাদ্য সংস্হা (WFP) ও এগিয়ে আসেন। এসব বিতরনের জন্য স্ব-স্ব উপজেলা এবং জেলায় কর্মরত এনজিও সংস্হা কে তালিকা প্রনয়নের দায়িত্ব দেয়া হয়। চকরিয়ায় দায়িত্ব দেয়া হয় S A R P V নামের একটি বিতর্কিত এনজিওকে।

কিন্তু এ এনজিও তালিকা প্রনয়নে নামে আছে কাগজে -কলমে। মাঠে ছিল না তাদের ভুমিকা। এ নিয়ে পুরো চকরিয়ায় চলছে তোলপাড়।

এমন কি এ তালিকায় নাম এসেছে শতকরা ৯০ ভাগ রাজনীতিবীদ ও জমিদার শ্রেণীর লোকের নাম। ১০ ভাগ পেয়েছে গরীব ও কর্মহারা লোকজন।

চকরিয়ার লক্ষ্যচর ও ডুলাহাজার ইউনিয়নের তালিকা তদন্ত করলে তলের বিড়াল বেরিয়ে আসবে।

এ প্রসংগে মুক্তিযোদ্ধা চকরিয়া শাখার কমান্ডার হাজী বশির বলেন,ভেওলা মানিকচর ইউনিয়নে যা তালিকা হয়েছে ওই তালিকা করতে চেয়ারম্যানের মতামত নেয়া হয়নি। শুধু তালিকায় স্বাক্ষর নেয়া হয়েছে।

অপরদিকে,কৈয়ারবিল ইউনিয়নের ৯ নং ওয়াডের মেম্বার সাইফুল ও এ ব্যাপারে মোটেই অবগত নয়।ব্যাপক অভিযোগ ধামা-চাপা দিতে প্রায় কলম সৈনিকদের নাম ও এ তালিকায় টাই পেয়েছে।

এদিকে খাদ্য বিতরনের সময়ে প্রতিটি ওয়াডে একজন চৌকিদার ও দুই জন লেবারের জন্য মোট ১৮ শত টাকা করে বেতন দেয়ার নিয়ম থাকলে ও তিনজনকে দেয়া হয়েছে ৯ শত টাকা। এ প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে অর্ধেক টাকা করে পুরো চকরিয়া থেকে উল্লেখিত টাকা কর্তন করে নিয়েছন ডিস্টিভিউটার অফিসার রায়হান।এসব বিষয়ে SARPVএর কক্সবাজার অফিসের পরিচালক কাজী মাসুদুল আলম মুহিত থেকে জানতে চাইলে তিনি বলেন,এ তালিকা করেছে প্রশাসন। SARPV অফিসের দায়িত্বরত কেউ করেনি। শুধু বিতরণ করার দায়িত্বে ছিলেন। তবে তিনি স্বীকার করে বলেন এসব প্রশ্ন না করার জন্যতো সব কলম সৈনিকদের এ তালিকায় আওতাভূত্ত করে খাদ্য সামগ্রী দেয়া হয়েছে। আপনি প্যাকেট না পেলে বিকালে দেখা করার জন্য অনুরোধ রইল।মুক্তিযোদ্ধা চকরিয়া শাখার কমান্ডার হাজী বশির পুরো তালিকাটি তদন্তের দাবী জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর