Logo
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

উখিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায়  আওয়ামী লীগ নেতা আহত’

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ / ৬৭০ বার
আপডেট সময় : বুধবার, ৮ জুলাই, ২০২০

 

জালিয়া পালং ইউনিয়ন এর সোনাই ছড়ি এলাকার কুখ্যাত সন্ত্রাসী আনচার উল্লাহ বাহিনী কতৃক সন্ত্রাসী হামলার শিকার আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা, জালিয়া পালং ইউনিয়ন এর সাবেক সাধারণ সম্পাদক সোলতান আহমদ সওদাগর।বুধবার বিকাল ৫.৩০ ঘটিকার দিকে সোনাইছড়ি গ্রামের বাদাম তলী নামাক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়, বাদামতলি এলাকার সন্ত্রাসী সানা উল্লাহর লালিত বাহিনির প্রধান গুন্ডা, ইয়াবাখোর, মানবপাচারকারী, ছাত্রদলের সাবেক ইউনিয়ন সভাপতি আনছার উল্লাহ, সোনাইছড়ি এলাকার আবদুল মোনাফের ছেলে ছৈয়দ আলম, ইছাক আহম্মেদ এর ছেলে জাহেদুল ইসলাম জাহেদ, আলী আকবরের ছেলে ছলিম উল্লাহ প্রকাশ বেলাইয়া দলবল নিয়ে গাড়ি থেকে নামিয়ে সোলতান আহমদ সওদাগর কে দা, লাঠি, হাতুড়ি নিয়ে মারধর করে।একসময় তিনি আঘাতে রাস্তায় পড়ে যান। তখন রাস্তার উপর ফেলে মারধর শুরু করেন এবং গুরুতর জখম হলে তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়েন। এলাকার দুইজন লোক সিএনজি করে উখিয়া হাসপাতালে নিয়ে যান। উখিয়া হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার অবস্থা গুরুতর দেখে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কক্সবাজার হাসপাতালে রেফার করেন। বর্তমানে তিনি কক্সবাজার মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, এলাকার এই সন্ত্রাসী বাহিনীর ইন্ধনদাতা সানা উল্লাহ দাড়িয়ে থেকে তার বাহিনীকে সোলতান আহমদকে মারধরের জন্য লেলিয়ে দেন।আরো জানায়, আনচার উল্লাহর সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও তার অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ঠ। তার ভাই সানা উল্লাহ তাকে অর্থের সহযোগিতা করে আর আনচার উল্লাহ ইয়াবা সেবন করে প্রতিনিয়ত তার সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে যায়।এই ঘটনার আগে আনছার উল্লাহ সোনাইছড়ি এলাকার নুর মোহাম্মদের পুত্র নুর আলম এবং একই এলাকার মৃত ফজল করিমের ছেলে মাহমুদুল হক কে গুম করে হত্যা চেষ্টা করেছিল। এবং গত মার্চে সানাউল্লাহর সন্ত্রাসী বাহিনী সোনাইছড়ি এলাকাবাসীর উপর হামলা চালান। সাম্প্রতিক সময়ে আনছার উল্লাহর বিরুদ্ধে বাদামতলী এলাকার ইউনুস নামে একজনকে গুরুতর জখম করার অভিযোগ রয়েছে।এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আনছার উল্লাহর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তার বিরুদ্ধে ও তার ভাই সানাউল্লাহর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট বলে জানান, তিনি আরও জানান পাওনা টাকা আদায়ের ব্যাপারে সামান্য হাতাহাতি হয়েছে।আহতের পরিবারের সাথে যোগাযোগ করা হলে রোগীর অবস্থা আশংকাজনক এবং মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানান আাহতের পরিবারের সদস্যরা।উল্লেখ্য আনছার উল্লাহ নিজের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের কারণে দল থেকে বহিস্কার হন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর