Logo
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

পটিয়ার কথা কচুয়াই প্রতিপক্ষের হামলায় স্বামী -স্ত্রী আহত:থানায় অভিযোগ  

পটিয়া প্রতিনিধি / ৪০৭ বার
আপডেট সময় : শুক্রবার, ৩ জুলাই, ২০২০

 

 

পটিয়া উপজেলা কচুয়াই ইউনিয়নে ৪ নম্বর ওয়ার্ডে কথা কচুয়াই আমিনুল হক ডিলারের বাড়িতে বসত ভিটার জায়গা দখল করা নিয়ে  বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষরা দেশীয় অস্ত্র সশস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়ে স্বামী -স্ত্রী কে আহত করেছে মর্মে অভিযোগ পাওয়াগেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ৩ জুলাই শুক্রবার বিকাল ৩ টায়  আমিনুল হক  ডিনারের বাড়িতে। আহতরা হলেন একই বাড়ির মোঃ আলমগীর ও তার স্ত্রী পারভিন আকতার। আহতদের

স্থানীয়রা উদ্ধার করে পটিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা জন্য প্রেরণ করে। পরে আহত অবস্থায় পারভিন আকতার বাদী হয়ে আমিনুল হক ডিলারের বাড়ির মৃত আহমদ মিয়ার ছেলে মোঃ মোস্তাক, মোঃ আরব মিয়া,মোঃ আরফাত সহ অজ্ঞাতনামা  ৩০/৪০ জনকে বিবাদী করে পটিয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। পটিয়া থানার দায়েরকৃত অভিযোগের বিবরণে জানাযায়,মোঃ আলমগীর এর ভোগদখলীয় জায়গা নিয়ে প্রতিপক্ষ  মোঃ মোস্তাক গং এর মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল দীর্ঘদিন যাবত  । এ নিয়ে প্রায় সময় মোস্তাক ও আরব মিয়া এবং আরফাত আলমগীরের পরিবার কে   অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে। এর ধারাবাহিকতা ৩ জুলাই শুক্রবার বিকাল ৩ টায়  বিবাদীগণ বেআইনি জনতাবদ্বে দেশীয় অস্ত্র সশস্ত্র সজ্জিত হয়ে আলমগীর এর ভোগদখলীয় জায়গায় অনধিকার প্রবেশ করে জোরপুর্বক দখলের  পাঁয়তারা চালায় মোস্তাক গং। এতে মোঃ আলমগীর বাঁধা দিলে  প্রতিপক্ষরা উত্তেজিত হয়ে আলমগীর কে এলোপাতাড়ি কিল,ঘুষি, লাথি মেরে শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলা ফুলা জখম করে। হামলার সময় ১ নং বিবাদী মোস্তাক কিরিচ দিয়ে মাথায় কোপিয়ে মারাত্মক কাটা জখম করে আলমগীর কে  । ২ নং বিবাদী মোঃ আরব মিয়া তার হাতের রড দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। ৩ নং বিবাদী মোঃ আরফাত আলমগীরকে দুই হাত  চেপে ধরে হত্যার চেষ্টা করে। এসময়  আলমগীর এর শোরচিৎকারে তার স্ত্রী পারভিন আকতার তাকে বাঁচানোর জন্য এগিয়ে আসলে প্রতিপক্ষরা এক সাথে তাকে এলোপাতাড়ি  পিটিয়ে রক্তাক্ত কাটা হাডভাঙা   জখম করে। এঘটনায় পারভীন আকতারের হাতের আঙুল ভেঙে যায়। এর এক পর্যায়ে ২ নং বিবাদী মোঃ আরব মিয়া পারভিন আকতার পরনের কাপড় চোপড টানাহেচডা পুর্বক শ্লীলতাহানি করে। হামলার সময় আলমগীরের  বসতঘরের দরজা টিন সহ বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাংচুর তান্ডব চালিয়ে ৫০ হাজার টাকার ক্ষতিসাধন করে বলে থানার দায়েরকৃত অভিযোগ সুএে প্রকাশ। বর্তমানে আলমগীর এর পরিবার প্রতিপক্ষদের হত্যার হুমকি ধামকিতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানান। এ ব্যাপারে তারা কচুয়াই  ইউনিয়ন পরিষদের  চেয়ারম্যান ইনজামুল হক জসিম ও পটিয়া  থানার ওসি মোঃ বোরহান উদ্দিন হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর