Logo
শিরোনাম :
উখিয়ায় বিলুপ্তপ্রায় বাজপাখি উদ্ধার রোহিঙ্গা ছৈয়দ নুরের এনআইডি কার্ড বাতিল করতে নির্বাচন কমিশন সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ থাইংখালী ব্লাড ডোনার’স ইউনিট-এর অ্যাডমিন আটকের ঘটনায় সংগঠনের বিবৃতি:- উখিয়ায় ১৪ এপিবিএনের সদর দপ্তর উদ্বোধনে অতিরিক্ত আইজিপি উখিয়ায় বালু উত্তোলনের সময় পাহাড়ের মাটি চাপা পড়ে যুবকের মৃত্যু উখিয়ায় তিন লাখ পিস ইয়াবাসহ আটক ২ রেজিষ্টার্ড রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে অস্ত্র, ইয়াবা ও গুলি উদ্ধার এসআই লাভলীকে চাকরি থেকে অব্যাহতি উন্নয়নে পাল্টে গেছে উখিয়ার রাজাপালংয়ের প্রান্তিক জনপদ : সর্বত্র দৃশ্যমান উন্নয়ন প্রকল্প শোভা পাচ্ছে রোহিঙ্গা শিবির থেকে সাড়ে ৯০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার: আটক ২
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

বন্যা কবলিত গৃহহীন রোহিঙ্গাদের জরুরী খাদ্য সরবরাহ করছে এনজিও রিক

নিজস্ব প্রতিবেদক: / ৩২২ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ২২ জুন, ২০২০

কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড় ধ্বস ও ভারী বর্ষণে প্লাবিত হয়ে গৃহহীন রোহিঙ্গাদের মাঝে জরুরী খাদ্য সরবরাহ করছে এনজিও সংস্থা রিক।বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচীর (ডাব্লিউএফপি)র অর্থায়নে আরআরআরসি ও উপজেলা প্রশাসনের অনুমোদন নিয়ে ৩৪টি ক্যাম্পে সেভ দ্যা চিলড্রেন, ব্র্যাক, ওয়ার্ল্ড ভিশন খাদ্য সরবরাহ করলেও শুধুমাত্র ৭২ ঘন্টার ইমার্জেন্সীতে জরুরী খাদ্য সরবরাহ করছে এনজিও সংস্থা রিক এমনটি জানিয়েছেন প্রকল্প সমন্বয়কারী আবু হোসেন।

‘হট মিল’ প্রকল্পে দায়িত্বরত রিকের ডিসট্রিভিউশন ম্যানেজার বিনয় ভূষণ রায় বলেন, গত ১১ জুন থেকে ১৪টি ক্যাম্পের গৃহহীন ৩৯৫ রোহিঙ্গা পরিবারের মাঝে ৬৪৮১ প্যাকেট ‘হট মিল’ বিতরণ করা হয়। প্রতিটি ৫৫ টাকার প্যাকেটে ভাত, ডিম, ডাল সবজি থাকে। এভাবে দুপুর ও রাতে দুইবার খাদ্য সরবরাহ করার কথা জানান।

বিয়ন ভূষণ আরো বলেন, প্রতিদিন ১১টার দিকে দুপুরের খাবার এবং বিকেল ৫টার আগে সিআইসি অফিস এবং স্বেচ্ছাসেবীদের মাধ্যমে রাতের বিতরণ করা হয়।অপরদিকে রেডজোনের আওতায় থাকা হোটেল খোলা রাখা ও গণজমায়েতের বিষয়ে জানতে চাইলে নুর হোটেলের পরিচালক মো: শামীম বলেন, কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের অনুমোদন নিয়ে স্বাস্থ্যসম্মত ভাবে জরুরী ভিত্তিতে শুধুমাত্র খাদ্য সরবরাহ করছি। আর গণজমায়েতের বিষয়টি সত্য নয়।উখিয়া উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে উপজেলার বেশ কয়েকটি ওয়ার্ড ও স্টেশনকে ২৯ জুন পর্যন্ত রেডজোন ঘোষণা করা হয়।

শুধুমাত্র নির্ধারিত দিন ছাড়া ফার্মেসী ব্যতীত সব ধরণের দোকান বন্ধ রাখারও নির্দেশনা রয়েছে।

এদিকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্বাস্থ্য এবং ইমার্জেন্সী প্রয়োজন ছাড়া প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ বলে জানিয়েছেন ইউএনও মো: নিকারুজ্জামান চৌধুরী। আর ইমার্জেন্সীতে যে সকল এনজিও ক্যাম্পে কাজ করছে তাদেরও সুনির্দিষ্ট নিয়ম বেঁধে অনুমতিপত্র দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।তবে, জেলা প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে হোটেল খোলা রাখার বিষয়টি তিনি অবগত নন। কারণ কারো আবেদন সিন করলে ত অনুমোদন হয়ে যায়না। অনুমোদনের বিষয়টি তিনি খতিয়ে দেখবেন বলে জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর