Logo
শিরোনাম :
উখিয়ায় বিলুপ্তপ্রায় বাজপাখি উদ্ধার রোহিঙ্গা ছৈয়দ নুরের এনআইডি কার্ড বাতিল করতে নির্বাচন কমিশন সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ থাইংখালী ব্লাড ডোনার’স ইউনিট-এর অ্যাডমিন আটকের ঘটনায় সংগঠনের বিবৃতি:- উখিয়ায় ১৪ এপিবিএনের সদর দপ্তর উদ্বোধনে অতিরিক্ত আইজিপি উখিয়ায় বালু উত্তোলনের সময় পাহাড়ের মাটি চাপা পড়ে যুবকের মৃত্যু উখিয়ায় তিন লাখ পিস ইয়াবাসহ আটক ২ রেজিষ্টার্ড রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে অস্ত্র, ইয়াবা ও গুলি উদ্ধার এসআই লাভলীকে চাকরি থেকে অব্যাহতি উন্নয়নে পাল্টে গেছে উখিয়ার রাজাপালংয়ের প্রান্তিক জনপদ : সর্বত্র দৃশ্যমান উন্নয়ন প্রকল্প শোভা পাচ্ছে রোহিঙ্গা শিবির থেকে সাড়ে ৯০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার: আটক ২
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

অর্ধাহারে দিন কাটছে রাণু মণ্ডলের

উখিয়া কন্ঠ  ডেস্ক / ৩৯৬ বার
আপডেট সময় : বুধবার, ১০ জুন, ২০২০

 

স্টেশনে বসে গান গাইতেন । সোশাল মিডিয়ার বদৌলতে রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে যান । রাণাঘাট স্টেশন থেকে সংগীত পরিচালক হিমেশ রেশমিয়ার রেকর্ডিং স্টুডিয়োয় পৌঁছে যান রাণু মণ্ডল। কিন্তু কয়েক মাস পেরিয়ে ছবিটা যেন আগের মতোই থেকে গেছে । এখন একপ্রকার অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছেন একসময়ের সোশাল মিডিয়া সেনসেশন রাণু । আজকাল আর কেউ তাঁর বাড়ি তেমন আসে না । আগের মতো খোঁজ নেয় না কেউ ।
কখনও রাস্তার পাশে, আবার কখনও রাণাঘাট স্টেশনে ঘুরে বেড়াতেন । গায়ে নোংরা ছেঁড়া জামা। আপন মনে গান গাইতেন । স্টেশন চত্বরে খাবার চেয়েই পেট চলত । একদিন রাণাঘাট স্টেশনে বসেই নিজের মনে গান গাইছিলেন রাণু মণ্ডল । “কুছ পা কর খোনা হ্যায়, কুছ খো কর পানা হ্যায়” । পাশে বসে থাকা অতীন্দ্র চক্রবর্তী নামে এক যুবকের মনে ধরে সেই গান । রাণুর গান মোবাইলে ভিডিয়ো করে ফেসবুকে আপলোড করেন তিনি । লতা মঙ্গেশকরের গাওয়া এই গান রাতারাতি রাণুর জীবন বদলে দেয় । দিন কয়েকের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায় তাঁর গানের ভিডিয়ো । সংবাদ মাধ্য়ম থেকে শুরু করে ছোটো ছোটো মিউজ়িক কম্পানি ভিড় জমাতে শুরু করে তাঁর বাড়িতে । রাণাঘাট বেগোপারার বাসিন্দাদের পাশাপাশি গোটা জেলার মানুষ দেখা করতে শুরু করে রাণুর সঙ্গে । এতদিন স্টেশনে রাত কাটাচ্ছিলেন মা । এবার তাঁকে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যায় মেয়ে । রুপোলি পর্দার আলো এবার ছুঁয়ে ফেলে রাণুকে। রিয়্যালিটি শো-তে যান । সেখানে নজরে পড়েন হিমেশের । এরপর রাণাঘাট থেকে পাড়ি দেন মুম্বইয়ে । তাঁর এই যাত্রায় সবসময় সঙ্গে ছিলেন স্টেশনের ওই অপরিচিত যুবক অতীন্দ্র । এরপর হিমেশ রেশমিয়ার সঙ্গে একটি গান রেকর্ড করেন তিনি। সেই “তেরি মেরি কাহানি” গানটিও হিট করে। এরপর নিজের নানা মন্তব্যে বারবার সোশাল মিডিয়ায় ট্রোল হন রাণু । রাতারাতি যে খ্যাতি অর্জন করেছিলেন ধীরে ধীরে কোথাও যেন তা ম্লান হয়ে যায় । মাস দুয়েক আগে শোনা যায়, মুম্বই থেকে কোনও এক অনুষ্ঠানের জন্য কেরালা গিয়েছিলেন তিনি । তারপর আর কোনও খোঁজ-খবর পাওয়া যায়নি, কেরালা থেকে ফিরেছেন রাণু মণ্ডল লকডাউন-কোরোনা সংক্রমণের ভিড়ে হারিয়ে যায় রাণু প্রসঙ্গ । এর মাঝেই খবর পাওয়া যায়, কেরালা থেকে বাড়ি ফিরেছেন তিনি । কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতি খুবই খারাপ । এখন একপ্রকার অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছেন তিনি । কখনও সবজি সিদ্ধ, কখনও বা মুড়ি খেয়ে খিদে মেটাচ্ছেন । রাণু মণ্ডল বলেন, “কেরালা থেকে বাড়ি ফেরার পর টানা পাঁচদিন প্রায় না খেয়েই কাটাতে হয়েছে । কেউ খোঁজ নিতে আসেনি । এখনও ঠিকমতো খাবার পাই না। কোনওদিন ভাত জোটে । কোনওদিন জোটে না। মুড়ি কিংবা কোনও সবজি সিদ্ধ করে, তা খেয়েই থাকতে হয় । মাঝেমধ্যে কেউ এসে একটু চাল-ডাল সাহায্য করে যায়।” আজকাল আর রাণুর বাড়িতে কেউ ভিড় জমায় না । মাঝেসাঝে দু-একজন আসেন । তবে, আগের মতো আর কিছু নেই । বলছেন রাণুর প্রতিবেশী । কেমন আছেন রাণু মণ্ডলমুহূর্তেই অনেককিছু পেয়ে বদলে গেছিল তাঁর জীবন । আজ কোথাও যেন আবার সেই পুরোনো দিনগুলো ফিরে এসেছে । জীবন বোধহয় এরকমই কিছু । তাই সেদিন স্টেশনের ভাইরাল হওয়া গান আজও অবলীলায় গেয়ে চলেছেন তিনি- “কুছ খো কর পানা হ্য়ায়, কুছ পা কর খোনা হ্যায়, জীবনকা মতলব তো আনা অর যানা হ্যায় ।”
তথ্যসূত্র :ইটিভি ভারত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর