Logo
শিরোনাম :
উখিয়ায় বিলুপ্তপ্রায় বাজপাখি উদ্ধার রোহিঙ্গা ছৈয়দ নুরের এনআইডি কার্ড বাতিল করতে নির্বাচন কমিশন সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ থাইংখালী ব্লাড ডোনার’স ইউনিট-এর অ্যাডমিন আটকের ঘটনায় সংগঠনের বিবৃতি:- উখিয়ায় ১৪ এপিবিএনের সদর দপ্তর উদ্বোধনে অতিরিক্ত আইজিপি উখিয়ায় বালু উত্তোলনের সময় পাহাড়ের মাটি চাপা পড়ে যুবকের মৃত্যু উখিয়ায় তিন লাখ পিস ইয়াবাসহ আটক ২ রেজিষ্টার্ড রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে অস্ত্র, ইয়াবা ও গুলি উদ্ধার এসআই লাভলীকে চাকরি থেকে অব্যাহতি উন্নয়নে পাল্টে গেছে উখিয়ার রাজাপালংয়ের প্রান্তিক জনপদ : সর্বত্র দৃশ্যমান উন্নয়ন প্রকল্প শোভা পাচ্ছে রোহিঙ্গা শিবির থেকে সাড়ে ৯০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার: আটক ২
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

কুতুবদিয়া হাসপাতালের জরুরী বিভাগে টাকা ছাড়া চিকিৎসা মিলে না

বিশেষ প্রতিবেদক / ৩০৭ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ৮ জুন, ২০২০

 

কুতুবদিয়া হাসপাতালের জরুরী বিভাগে টাকা ছাড়া চিকিৎসা হয় না, এমন অভিযোগ ভুক্তভোগীদের। লকডাউনের সুযোগে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে জরুরী বিভাগে দায়িত্ব পালনকারী আবদুর রহিম।

অভিযুক্ত রহিম আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের চৌধুরীপাড়া এলাকার মীর কাসেমের ছেলে এবং দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালের এমএলএসএস পদে দাপটের সাথে চাকুরী করে চলেছে।

ভুক্তভোগীদের অনেকে জানান, রোগীদের হাসপাতালে ভর্তি করা না করা তার সিদ্ধান্ত। এতে রোগীর স্বজন থেকে টাকা হাতিয়ে নেয় রহিম। হাসপাতালে ভর্তিকৃত রোগীকে অন্যত্র রেফার করার বিষয়টি হয় সম্পুর্ণ
তার হকুমে। সেক্ষেত্রে রোগির স্বজন থেকে
হাজার, দু’হাজার টাকা আদায় করে বলে অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তার কথায় হাসপাতালের ডাক্তাররা উঠবস করে বলে সে দাপটের সাথে দাবী করে।
জরুরী বিভাগে কাটাছেঁড়া ও সেলাইয়ের কাজটি দীর্ঘ দিন ধরে করে আসছে
এই রহিম। দরদাম করে কাজে হাত দেয় অভিযুক্ত রহিম। টাকা আগে, পরে চিকিৎসা বলে দাবী করে রহিম। রোগীদের সাথে অসৌজন্যমুলক আচরণ তার নিত্য-নৈমিত্তিক ব্যাপার। গরীব ও অশিক্ষিত লোক দেখলে নিজেকে হাসপাতালের বড়
ডাক্তার দাবী করে বসে সে। কয়েকজন নেতার আত্মীয় পরিচয়ে দাপটের সাথে হাসপাতালে যতসব অনিয়মের কাজ
দাপটের সাথে চালিয়ে যাচ্ছে এই এমএলএসএস রহিম। অভিযুক্ত রহিমকে
জরুরী বিভাগ থেকে অন্যত্র সরানোসহ তার
বিরুদ্ধে তদন্তপুর্বক ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নিকট হস্তক্ষেপ কামনা করেন ভুক্তভোগীরা।

সোমবার (৮জুন) সকাল ১১ টায় জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে যান কম্পিউটার দোকানদার মোহাম্মদ আতিক। তিনি
জানান, আজ সকাল ১১ টার দিকে
৫ম শ্রেণি পড়ুয়া ভাগিনা আবু হোছাইফ (১১) কে হাসপাতালে নিয়ে যাই চিকিৎসা দিতে। জরুরী বিভাগে গেলে দেখা মিলে রহিমের সাথে। ভাগিনার বাম হাতের
ক্ষতস্থানের কাজ করতে গেলেই ২ হাজার টাকা দাবী করে বসে এই রহিম। নিরুপায় হয়ে তার কথায় রাজি হয়ে কাজ শেষ করি।
পরে দাবীকৃত টাকা দিতে ব্যর্থ হয়ে তর্কাতর্কিতে লিপ্ত হয় রহিম। ঘটনাটি জানাজানি হলে সাংবাদিকের ফোন পেয়ে বিষয়টি আপোস করতে মাঠে নামে আবদুর রহিম ও তার সিন্ডিকেট।

উত্তর বড়ঘোপ লাল ফকিরপাড়া এলাকার
গিয়াস উদ্দিন জানান, কিছুদিন আগে আমার ভাই জসিম উদ্দিন (২৬) বিষপান করলে হাসপাতালে নিয়ে যাই। বিষ ওয়াশ করলে ২ হাজার টাকা দিতে হবে দাবী করে বসে রহিম। বাধ্য হয়ে সেদিন আমি ২ হাজার টাকা দিতে হলো। এমন অভিযোগ তার বিরুদ্ধে অসংখ্য। অফিস চলাকালীন মোটর সাইকেল নিয়ে সর্বত্র বেপরোয়াভাবে ঘুরে বেড়ায় সে।

অভিযুক্ত আবদুর রহিম জানান, এমএলএসএস পদের চাকুরী হলেও জরুরী বিভাগে ডাক্তারের সহকারী হিসাবে কাজ করি। আমি কারো কাছে টাকা দাবী করি না। খুশি হয়ে কেউ টাকা দিলে নিই। আতিক দুই হাজার টাকা দিবে বলে কথা দিয়ে ১৫০ টাকা দিয়েছে। আবার অভিযোগ ও কেনো
দিলে বুঝতে পারছি না। আমিতো জোর
করে টাকা নিই নাই। দুই হাজার টাকা দাবী করার বিষয়টি অস্বীকার করে সে।

কুতুবদিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী বলেন, আবদুর রহিম জরুরী বিভাগে ডাক্তারের সহকারী হিসেবে কাজ করে। আজ সকালে ডা.জয়নাল আবেদীনের সাথে জরুরী বিভাগে কর্মরত ছিলেন। যদি কেউ জরুরী বিভাগে সেবার নামে রোগীর কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেন, তার ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এক্ষুণি তাকে ডেকে বিষয়টি জেনে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি।

ডা.জয়নাল আবেদীন জানান, তিনি সকালে জরুরী বিভাগে দায়িত্বে ছিলেন না। রাতেই তিনি ডিউটি শেষ করেছেন। আবাসিক কর্মকর্তা ডা.রেজাউল হাসান জানান,
ডা.মাহমুদ সকাল টাইমে ডিউটিতে ছিলেন। এদিকে, ডা.মাহমুদ জানান তিনিও ডিউটিতে ছিলেন না। কে ডিউটিতে ছিলেন তা জানতে ডিউটি ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন ডা.মাহমুদ। এভাবে দায়সারাভাবে কথা বলে একজনের দায় অন্যজনের কাঁধে চাপান ডাক্তারগণ। বিষয়টি নিয়ে এখনো ধোঁয়াশা কাটেনি তবে সকলে নিউজ না করার জন্য প্রতিবেদককে অনুরোধ জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর