Logo
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

উখিয়ায় লকনডাউন

উখিয়া কন্ঠ / ২৪৯ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ৮ জুন, ২০২০

কক্সবাজারের উখিয়ার তিন ইউনিয়নে চলছে লকনডাউন।  করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করায় দেশের প্রথম রেড জোন ঘোষণা দিয়েছেন সরকার।৮ জুন(সোমবার) অবরুদ্ধের প্রথম দিনে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ছিল কঠোর অবস্থানে। এর ফলে যে কোনো ধরণের পরিবহন, মার্কেট, দোকান ও বিপণিবিতান বন্ধ রাখার জন্য প্রশাসনের নির্দেশনা থাকায় সকলে তা মেনে চলেছেন।উখিয়া সদর রাজাপালং ও পালংখালী রেড জোন এলাকায় ওষুধের দোকান ছাড়া সব রকমের দোকানপাট বন্ধ ছিল। জরুরী প্রয়োজনে প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া কেউ এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে পারেননি। নির্মাণ শ্রমিক বাবুল দীর্ঘপথ হেটে বাজারে ওষুধ কিনতে এসেছেন বলে জানানরোহিঙ্গা ক্যাম্পে খাদ্য সহায়তা ও স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত এনজিও কর্মীরা অবাধে ক্যাম্পে ঢুকেছেন। তবে যে সমস্ত এলাকা রেড জোনের আওতায় নয়, সে সব এলাকায় পরিবহনের অভাবে অনেককে হেটে চলাচল করতে দেখা গেছে। উখিয়া থেকে বালুখালী ও পালংখালী এলাকায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যাওয়ার জন্যে বের হয়ে মুমিনা ও ইয়াছমিন ফিরে এসেছেন বাসা বাড়িতে। তাদের ফিরে আসার কারণ জানতে চাইলে তারা যথাসময়ে গাড়ি না পেয়ে ফিরে এসেছেন বলে জানান।সীমিত আকারে দু-একটি রিক্সা টমটম ও সিএনজি চলাচল করতে দেখা গেছে। আগের মতো মানুষকে অবাধে চলাচল করতে দেখা যায়নি। দু-একজন যারা প্রয়োজনে বের হয়েছেন তারা মুখে মাস্ক ব্যবহার করেছেন। এমনকি রিক্সা চালকও মুখে মাস্ক পরে, হাতে গ্লাবস ব্যবহার করে বের হয়েছেন। উখিয়া থানা প্রশাসন প্রথম থেকে মানুষকে সচেতন করতে কিছুটা নমনীয় ছিলেন। তবে নির্দেশনা অমান্য করলে প্রশাসন তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবে।এ ব্যাপারে উখিয়া থানা অফিসার ইনচার্জ মর্জিনা আক্তার বলেন নিদের্শনা অমান্য করায় কিছু সংখ্যাক টমটম চালকের গাড়ী চাবি নিয়েনি। উপজেলার রাজাপালং ও পালংখালীতে আক্রমণের সংখ্যা বেশি হওয়ায় কুতুপালং,থাইংখালীসহ বেশ কয়েকটি এলাকা রেড জোনের আওতায় আনা হয়েছে।এসব এলাকায় কঠোর লকডাউন চলছে।কুতুপালং বাজারে লকডাউন বাস্তবায়নে মাঠে সেচ্ছাসেবক নিয়ে দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে খোদ বাজার কমিটির সভাপতি হেলাল উদ্দিন কে।বালুখালীতে উখিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহীম আজাদ বিশাল কর্মী সমর্থক নিয়ে সেচ্ছাসেবকের দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায়।থাইংখালীতে ইউপি চেয়ারম্যান এম.গফুর উদ্দিন চৌধুরী দায়িত্ব পালন করছেন।তবে তাকে রোহিঙ্গা ঠেকাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে বলে জানা গেছে।কিন্তু এসব নিদের্শনা  তোয়াক না করে লকনডাউন অমান্য করায়  কোটবাজার , উখিয়া,বালুখালী, কুতুপালং ও থাইনখালী ষ্টেশনের বেশ কয়েকজন পথচারী, দোকানদার কে জরিমানা করা হয়েছে।

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিকারুজ্জামান চৌধুরী ও সহকারী কমিশনার ভূমি আমিমুল এহসান খান মাঠে রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর