Logo
নোটিশ :

আমাদের ভুবনে আপনাকে স্বগতম>>তথ্য নির্ভর সংবাদ পেতে  সাথে থাকুন  ধন্যবাদ।

চকরিয়ায় আওয়ামী লীগ নেতার নেতৃত্বে বিধবার বসতঘরে হামলা-ভাংচুর, লুটপাট!

স্টাফ রিপোর্টার: / ১৯৭ বার
আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৯ মে, ২০২০

 

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলায় এক আওয়ামী লীগ নেতার নেতৃত্বে একদল লোক লাটিসোটা নিয়ে এক অসহায় বিধবা নারীর বসতঘর ভাংচুর, হামলা ও লুটপাট চালিয়েছে বলে গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল ১৮ মে বিকালে ও রাত ৮টার দিকে দুই দফায় চকরিয়ার হারবাং ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড়ের মছন সিকদার পাড়া গ্রামে উক্ত ঘটনাটি সংগঠিত হয়। এ ঘটনায় প্রভাবশালী ওই নেতার হুমকিতে থানায় মামলা করার সাহসও পাচ্ছেনা অসহায় বিধবার পরিবার।

১৯ মে বিকালে সরেজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জানা গেছে, ঘটনার দিন রাত ৮ ঘটিকার দিকে চকরিয়ার হারবাংয়ের ওই গ্রামের মরহুম মো: আলীর স্ত্রী নুর জাহান বেগম (৬০) এর বসতঘরে লাটিসোটা নিয়ে অতর্কিতভাবে হামলা করে হারবাং ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড় আওয়ামী লীগ সভাপতি আবদুর রশিদের নেতৃত্বে ১০/১২ জনের একদল লোক। ওই আওয়ামী লীগ নেতা হারবাংয়ের মছন সিকদার পাড়া গ্রামের মরহুম ইসহাক আহমদের পুত্র। হামলাকারীরা এসময় বিধবা নুর জাহান বেগমের মাথা গোঁজার একমাত্র ঠাঁই বসতঘরটি ভাংচুর করে। বসতঘর ভাংচুর করে তারা ক্রান্ত হননি। বিধবা নুরজাহান, দুই পুত্র পুত্র আবুল কালাম, আলমগীর, পুত্রবধূ শারমিনকেও পিঠিয়ে আহত করে। ভাংচুর ও হামলার পর তারা বিধবার বসতঘরে প্রবেশ করে পুত্রবধূ শারমিনের স্বর্ণালংকার, নগদ টাকাসহ প্রায় লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।

ঘটনার প্রসঙ্গে বিধবার পুত্র আলমগীর অভিযোগ করে জানান, তার ভাই আবুল কালাম বাড়ীর কাছের জমিতে নেপিয়ার ঘাসের চাষ করেছিল। ১৮ মে বিকাল ৪ ঘটিকার সময় তার ভাই আবুল কালামের নেপিয়ার ঘাস ক্ষেতে আবদুর রশিদের পরিবারের লোকজন অনধিকার প্রবেশ করে ঘেরা-বেড়া ভাংচুর করে এবং ১৫/২০টি গরু লাগিয়ে দিয়ে তার ভাইয়ের নেপিয়ার ঘাসগুলো নষ্ট করে দেয়। এসময় তার মা বিধবা নুর জাহান বেগম আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রশিদের লোকজনকে নেপিয়ার ঘাস ক্ষেত নষ্ট না করার জন্য অনুরোধ করেন। এতেই ক্ষিপ্ত হন আবদুর রশিদের লোকজন।

বিধবা নুর জাহানের পুত্র আবুল কালাম কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, ‘বিকালের ঘটনার রেশ ধরেই আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রশিদ গংয়ের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়েই ১৮ মে রাত ৮ঘটিকার দিকে তার মায়ের বসতঘরে বেপরোয়াভাবে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট চালানো হয়েছে। আবুল কালাম বলেন, আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রশিদ, তার পুত্র হুমায়ন কবির, ভাই আবদু সালাম, স্থানীয় ইসমাইলের পুত্র আকবর আহমদ, আকবরের দুই পুত্র পারভেজ ও মারুফ, নুরল হকের পুত্র আবদুল্লাহ আল ফাহিম, মানিক, ফজলুর রহমানের পুত্র রাসেলসহ আরো কয়েকজন লোক ধারালো অস্ত্রশস্ত্র ও লাটিসোটা নিয়ে রাতের আঁধারে অতকির্তখভাবে চকরিয়ায় আওয়ামী লীগ নেতার নেতৃত্বে বিধবার বসত ঘরে হামলা-ভাংচুর ও লুটপাট!তার মায়ের বসতঘরে তান্ডব চালিয়েছে। আবদুর রশিদ ও তার লালিত-পালিত সন্ত্রাসীরা প্রতিনিয়তই তার মা নুর জাহানসহ তার পুরো পরিবারকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে। আবদুর রশিদ আওয়ামী লীগ নেতা হওয়ায় এলাকার কেউ তার ভয়ে মুখ খোলার সাহস করেনা। আমরাও প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছিনা। তারা প্রতিনিয়তই আমাকে হুমকি দিচ্ছে। মামলা করার জন্য থানয় যেতে পারছিনা।

বিধবা নুর জাহান বেগম বেগম কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রশিদ তার মাথা গোঁজার ঠাঁই বসতঘরের চালা ভাংচুর করেছে। এখন বৃষ্টির পানি পড়ছে। পরিবার নিয়ে খুব কষ্টে আছি। তারা উপর্যপুরি আমাকে ও আমার পুত্রদের নানানভাবে হুমকি দিচ্ছে। তাদের হুমকিতে আমরা অসহায় হয়ে পড়েছি। আমি এ ঘটনায় প্রশাসনের কাছে বিচার দাবি করছি।

বিধবা নুর জাহানের বসতঘরে রাতের আঁধারে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের বিষয়ে জানার জন্য বক্তব্য নেওয়ার জন্য চেষ্টা করা হলেও অভিযুক্ত হারবাং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৪ নং ওয়ার্ড় সভাপতি আবদুর রশিদকে পাওয়া যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, আবদুর রশিদ বিগত কয়েক বছর ধরে ক্ষমতাসীন দলের প্রভাব বিস্তার করে এলাকার অসহায় লোকজনকে এক প্রকার জিম্মি করে রেখেছে। এলাকায় অসহায় পরিবারের জমি দখল থেকে শুরু করে চাঁদাবাজি, লুটপাটসহ এমন কোন অপকর্ম নাই যা আবদুর রশিদ ও তার পরিবারের লোকজন সংগঠিত করছেনা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর